মে ১৫, ২০২০ ১৬:৪৩ Asia/Dhaka
  • কথাবার্তা: চীনের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্নের হুমকি ট্রাম্পের

সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা: ১৫ মে শুক্রবারের কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি আমি বাবুল আখতার। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম তুলে ধরছি।

বাংলাদেশের শিরোনাম:

  • দেশে করোনায় শনাক্ত ২০ হাজার ছাড়াল, মৃত্যু ১৫-দৈনিক প্রথম আলো
  • আরেক ভয়ঙ্করতম প্রাকৃতিক বৈরি পরিস্থিতিতে পড়তে যাচ্ছে আমেরিকা-দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন
  • করোনার 'বিস্ময়কর ভেষজ ওষুধ' আর্টেমিশিয়া পরীক্ষা করছেন জার্মান গবেষকরা-দৈনিক কালেরকণ্ঠ
  • চীনের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্নের হুমকি ট্রাম্পের-দৈনিক যুগান্তর
  • করোনায় ৮.৮ ট্রিলিয়ন ডলার হারাতে পারে বৈশ্বিক অর্থনীতি: এডিবি-দৈনিক মানবজমিন
  • স্বার্থান্বেষী মহল উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার চালাচ্ছে : কাদের রিজভী বলেন- মানুষ বাঁচাতে সরকার পদক্ষেপ নেয়নি-দৈনিক নয়াদিন্ত

ভারতের শিরোনাম:          

  • করোনা থাকবে তার মধ্যেই গ্রামবাঙলার অর্থনীতি চালু করতে হবে- মমতা-দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা
  • ভারতে করোনা সক্রমণ ছাড়াল ৭৪ হাজার, বাড়ছে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা-দৈনিক আজকাল
  • মহামারির মধ্যেও ‘আত্মনির্ভর’ হওয়ার ডাক-মোদির! কটাক্ষ প্রশান্ত কিশোরের-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

দেশে করোনায় শনাক্ত ২০ হাজার ছাড়াল, মৃত্যু ১৫-দৈনিক প্রথম আলো

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন সর্বোচ্চ ১ হাজার ২০২ জন। এর মধ্য দিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা ২০ হাজার ছাড়িয়েছে। বর্তমানে সংক্রমিত করোনা রোগীর সংখ্যা ২০ হাজার ৬৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৫ জন। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ২৯৮ জন। গতকাল বৃহস্পতিবার দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৪১ জন। আর মারা গিয়েছিলেন ১৪ জন।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আজ শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে এই তথ্য জানানো হয়। ব্রিফিংয়ের শুরুতে জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করা হয়।গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২৭৯ জন। আর এ নিয়ে সর্বমোট ৩ হাজার ৮৮২ জন সুস্থ হয়েছেন।

ব্রিফিংয়ের তথ্যমতে, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৮ হাজার ৫৮২ জনের করোনা পরীক্ষা করা হয়। আর সর্বমোট ১ লাখ ৭ হাজার ৫১২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। দেশে এখন ৪১টি ল্যাবে (পরীক্ষাগার) করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি শনাক্তের ঘোষণা আসে। আর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

মানুষ বাঁচাতে সরকার পদক্ষেপ নেয়নি: রিজভী-দৈনিক প্রথম আলো

সরকার করোনা মহামারিতে মানুষকে বাঁচাতে বা সচেতন করতে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ শুক্রবার সকালে মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার নিমতলী এলাকায় ও শ্রীনগরের বীরতারা ইউনিয়নে ত্রাণ বিতরণের সময় তিনি এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনা মহাদুর্যোগ ২১০টি দেশে আঘাত হেনেছে। এটির কোনো ওষুধ তৈরি হয়নি। সচেতন ও সাবধান থাকতে হবে করোনা মোকাবিলায়। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় সরকার কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। উল্টো লকডাউন তুলে দিয়েছে।একবার বলেন লকডাউন শিথিল করা হয়েছে, আবার বলেন লকডাউন চলবে। তাঁরা মানুষকে বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলছেন। আমাদের দেশ আক্রান্ত হওয়ার আগে করোনা প্রতিরোধে পদক্ষেপ নিতে পারতেন, তা নেননি।’

রিজভী বলেন, সরকার কয়েকটি ফ্লাইওভার তৈরি করে উন্নয়নে ভাসিয়ে দিচ্ছে বলে প্রচার করছে। হাসপাতাল নেই কেন, ভেন্টিলেটর নেই কেন। করোনা রোগীদের দরকার ভেন্টিলেটর, অক্সিজেন।

দেশের ৯০ শতাংশ হাসপাতালে এ ব্যবস্থা নেই। তাহলে মানুষ বাঁচবে না মরবে। তাহলে তো মানুষ মরার কথা। সরকার মানুষ বাঁচানোর কোনো কাজ করেনি।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে রিজভী বলেন, ‘মানুষ বাঁচানোর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করেননি। আপনি করেছেন উন্নয়নের নামে আপনার নেতা–কর্মীদের যাতে পকেট ভারী হয়। আপনার দলের নেতা–কর্মীরা ক্যাসিনোর মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে। হাসপাতাল করেননি। মানুষ বাঁচানোর জন্য উন্নত যন্ত্রপাতি আনেননি। উন্নত স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় করেননি, যার মধ্য দিয়ে প্রকৃত উন্নয়ন হবে, তা আপনারা করেননি।’

ভয়ংকর পরিস্থিতি তৈরি করে মানুষ বাঁচুক–মরুক তাতে সরকারের কোনো দায়িত্ব নেই। আমি ছেড়ে দিলাম, মরবে মরুক। আর যে বাঁচবে বাঁচুক। আমি তো ঠিক আছি। আমার নেতা–কর্মীরা খেয়েদেয়ে ঠিক আছে। আমাদের জীবন নিরাপদ আছে। জনগণের সাথে কোনো সম্পর্ক নাই। সাংবাদিক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মারা যাচ্ছেন।

সরকারের কোনো পদক্ষেপ নেই। ত্রাণ বিতরণের সময় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘এরকম দুর্যোগ পরিস্থিতিতে আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী জনগণের পাশে আছি। আমরা শান্তিপূর্ণভাবে কাজ করতে পারছি না।’

‘আমাদের নেতা–কর্মীদের গুম করা হচ্ছে। মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। অর্থাৎ জনগণকে সহায়তা করার জন্য বিরোধী দলগুলো এগিয়ে যাবে, সেখানে তারা বাধা দিচ্ছে। অসহায় মানুষ, কর্মহীন মানুষ, গরিব মানুষ বেঁচে থাকুক, সরকার তা চায় না। চায় না বলে ভয়ংকার মহামারিতেও নির্যাতন অব্যাহত রেখেছে।’

ত্রাণ বিতরণের সময় আরও উপস্থিত ছিলেন,বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরাফত আলী, সিরাজদিখান থানা বিএনপির সভাপতি বীরেন কুদ্দুস, সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. সোহেল হোসেন, শ্রীনগর বিএনপির সভাপতি শহীদুল হক, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আওলাদ হোসেন প্রমুখ।

আরেক ভয়ঙ্করতম প্রাকৃতিক বৈরি পরিস্থিতিতে পড়তে যাচ্ছে আমেরিকা-দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন

মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে যুক্তরাষ্ট্র ‘আধুনিক ইতিহাসের ভয়ঙ্করতম শীতকালের’ কবলে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন দেশটির সাবেক এক শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।

প্রতিনিধি পরিষদের স্বাস্থ্য বিষয়ক সাব কমিটির শুনানিতে করোনাভাইরাস সংকট নিয়ে এমন উদ্বেগজনক পূর্বাভাস দেন রিক ব্রাইট নামে ওই ইমিউনোলজিস্ট।

রিক ব্রাইট

রিক ব্রাইট নামে ওই কর্মকর্তা যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি প্রতিষ্ঠানের হয়ে করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আবিষ্কারের কার্যক্রমের প্রধান ছিলেন। কিন্তু গত মাসে তাকে ওই পদ থেকে সরিয়ে দেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ দেওয়া ভাষণে ব্রাইট বলেন, মহামারির শুরুতে সরকারের নিষ্ক্রিয়তার তারণে ‘অনেক বেশি প্রাণহানি’ হয়েছে। ব্রাইট জানান, করোনা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সরঞ্জামের ঘাটতি রয়েছে বলে জানুয়ারিতেই তিনি স্বাস্থ্য ও মানবসেবা বিভাগ-এইচএইচএস’কের ‘সর্বোচ্চ পর্যায়কে’ সতর্ক করেছিলেন। “কিন্তু কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।”

করোনার 'বিস্ময়কর ভেষজ ওষুধ' আর্টেমিশিয়া পরীক্ষা করছেন জার্মান গবেষকরা-দৈনিক কালেরকণ্ঠ

বিশ্বজুড়ে প্রলয় সৃষ্টি করেছে আণুবীক্ষণিক জীব নভেল করোনাভাইরাস। গুঁড়িয়ে দিচ্ছে মানবজাতির সভ্যতা ও বিজ্ঞানের দম্ভ। কোন ওষুধ নেই, প্রতিষেধক নেই। শুধুই মৃত্যুর অপেক্ষা। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা উঠেপড়ে লেগেছেন একটা ওষুধ বা ভ্যাকসিন তৈরিতে। এখনও সফলতার মুখ দেখেননি। তবে আফ্রিকার দরিদ্র দেশ মাদাগাস্কার দাবি করেছে তারা করোনা নিরাময়ের অলৌকিক ভেষজ ওষুধ তৈরি করে ফেলেছে। ‘আর্টেমিশিয়া’নামে এক ধরনের ভেষজ উদ্ভিদ থেকে এই ওষুধ তৈরি করা হয়েছে। এই ভেষজ ওষুধ খেলে ২৪ ঘণ্টায় করোনামুক্তি ঘটবে বলে দাবি দেশটির সরকারের।

সংবাদ সম্মেলনে মাদাগাস্কারের প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রি রেজোলিনা বোতল থেকে আর্টেমিশিয়া ওষুধটি পান করে

তবে আফ্রিকার দরিদ্রতম দেশটির এই সফলতায় আস্থা রাখতে পারছেন না বিশ্বের অনেকেই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) তো বলেই দিয়েছে এখনো কোনো বৈজ্ঞানিক গবেষণা নেই যা প্রমাণ করে যে আর্টেমিসিয়া কাজ করে। তাই মাদাগাস্কার সরকার করোনভাইরাস নিরাময়ে ভেষজটি সত্যিই কাজ করে কিনা সেটা যাচাই করার জন্য একদল আন্তর্জাতিক গবেষক দ্বারা পরীক্ষা করার উদ্যোগ নিয়েছে। করোনা নিরাময়ে আর্টেমিসিয়া কাজ করে কিনা সেটা পরীক্ষা করতে জার্মানির ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট অফ কলয়েডস ও জার্মান পটসডামের ইন্টারফেসের বিজ্ঞানীরা এবং ডেনমার্কের একদল গবেষক মার্কিন সংস্থা আর্টেমিলাইফের সাথে যৌথভাবে কাজ করছেন।

চীনের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্নের হুমকি ট্রাম্পের-দৈনিক যুগান্তর

করোনা পরিস্থিতিতে চীনের সঙ্গে সবচেয়ে বাজে সম্পর্ক তৈরি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের। কোভিড-১৯ এ টালমাটাল যুক্তরাষ্ট্র শুরু থেকেই করোনাভাইরাস বিস্তারের জন্য চীনকে দায়ী করে আসছে।

সবশেষ বৃহস্পতিবার রাতে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাম্প বেইজিংয়ের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্নের হুমকি দিলেন। ফক্স বিজনেস টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ কথা বলেন। বৃহস্পতিবার ট্রাম্পের এ সাক্ষাৎকার প্রচারিত হয়। খবর দ্য টেলিগ্রাফ ও ও ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, জানুয়ারিতে চীনের সঙ্গে তার যে চুক্তি হয়েছিল সেই চুক্তি ঠিকমত রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়েছে বেইজিং। বাণিজ্য চুক্তি তারা রক্ষা করেনি এবং আবারো একই ঘটনা ঘটতে দেয়া ঠিক হবে না।তাই তাদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখার কোনো মানে হয় না। এই চুক্তিকেই জানুয়ারিতে ট্রাম্প বড় অর্জন বলে আখ্যা দিয়েছিলেন।

কিছুদিন আগেও ট্রাম্প বলেছিলেন, চীনা প্রেসিডেন্ট জিনপিংয়ের সঙ্গে তার সম্পর্ক ভালো। অথচ বৃহস্পতিবারের সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, মহামারির পর আমি মনে করি চীনা প্রেসিডেন্টের সঙ্গে আলোচনা করার কোনো প্রয়োজন নেই। আমি এখন তার সঙ্গে কথা বলতে চাই না।

যুক্তরাষ্ট্রের একজন সিনেটর কিছুদিন আগে বলেছিলেন, চীনের শিক্ষার্থীদের মার্কিন ভিসা দেয়া বন্ধ করা উচিত, বিশেষ করে নিরাপত্তা খাতে। এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে ট্রাম্প বলেন, আমরা আরও অনেক কিছুই করতে পারি।আমরা ভিসা বন্ধ করতে পারি। আবার সব সম্পর্কও ছিন্ন করতে পারি।

এদিকে, চীনা অ্যাসোসিয়েশন অফ ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড-এর বিশেষজ্ঞ কমিটির ডেপুটি চেয়ারম্যান লি ইয়ং বলেন, তার দেশ এখনও আশা করে বাণিজ্যের বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্র রাজনীতিকীকরণ করবে না। কারণ তা কোনো পক্ষের জন্যই মঙ্গলজনক হবে না।

উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে বাণিজ্য নিয়ে টানাপোড়েন চলছে। দুপক্ষই একে অপরের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক বাড়তি বাণিজ্য শুল্ক আরোপ করেছে। পরে অবশ্য একটু চুক্তি হয়েছে তবে তা নিয়েও স্বস্তিতে নেই এ দুই দেশ।

করোনায় ৮.৮ ট্রিলিয়ন ডলার হারাতে পারে বৈশ্বিক অর্থনীতি: এডিবি-দৈনিক মানবজমিন

করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) মহামারিতে ৫ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলার থেকে ৮ লাখ ৮০ হাজার কোটি ডলার পর্যন্ত ক্ষতির শিকার হতে পারে বৈশ্বিক অর্থনীতি। এই ক্ষতির পরিমাণ পুরো বৈশ্বিক উৎপাদনের ৬.৪ থেকে ৯.৭ শতাংশ। শুক্রবার এমনটা জানিয়েছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি)। তাদের গত মাসের অনুমানের তুলনায় এ সংখ্যা দ্বিগুণের বেশি। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।খবরে বলা হয়, বিশ্বজুড়ে করোনার সংক্রমণ রোধে সীমিত রাখা হয়েছে অর্থনৈতিক কার্যক্রম। প্রতিদিন কমছে প্রবৃদ্ধির হার। এই ক্ষতি পোষাতে আগ্রাসী পদক্ষেপ নিচ্ছে বিশ্বজুড়ে সরকাররা। এডিবির প্রধান অর্থনীতিবিদ ইয়াসুকি সাওয়াদা বলেন, নতুন এই বিশ্লেষণে অর্থনীতির উপর কভিড-১৯ এর সম্ভাব্য প্রভাবের বিস্তৃত চিত্র ফুটে উঠেছে।এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে প্রয়োজনীয় নীতিমালার গুরুত্বও ফুটে উঠেছে।এডিবি বলেছে, মানুষের চলাচল ও ব্যবসায়িক কার্যক্রম ছয় পাস পর্যন্ত সীমিত থাকবে, এমনটা বিবেচনায় অর্থনীতির সম্ভাব্য সর্বোচ্চ ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে। অন্যদিকে, সর্বনিম্ন ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণ করা হয়েছে চলাচল ও ব্যবসায়িক কার্যক্রম তিন মাস বন্ধ থাকবে এমনটা বিবেচনায়।

করোনা মহামারিতে আর্থিক ক্ষতিতে বিশ্বজুড়ে মন্দাবস্থা সৃষ্টির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমতাবস্থায়, বিশ্বের কেন্দ্রীয় ব্যাংকগুলো এই ক্ষতি পুষিয়ে তুলতে, আগ্রাসীভাবে সুদের হার কমাচ্ছে ও বিশাল অঙ্কের প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণা দিচ্ছে।

গতকাল বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক শক্তি যুক্তরাষ্ট্রের উপর করোনার প্রভাবের ভয়াল চিত্র প্রকাশ পেয়েছে। দেশটিতে লকডাউন শুরুর পর থেকে বেকারত্ব ভাতার জন্য আবেদন করেছেন ৩ কোটি ৬০ লাখের বেশি মানুষ। এর মধ্যে গত সপ্তাহেই আবেদন করেছেন প্রায় ৩০ লাখ। যুক্তরাষ্ট্রের মোট কর্মশক্তির এক-চতুর্থাংশই এখন নিজেদের বেকার বলে দাবি করছে। এদিকে, অস্ট্রেলিয়ায় লকডাউনের মধ্যে কাজ হারিয়েছেন প্রায় ৬ লাখ মানুষ। কর্মঘণ্টা কমে গেছে আরো ৬ লাখ মানুষের।

স্বার্থান্বেষী মহল উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার চালাচ্ছে : কাদের-দৈনিক নয়াদিগন্ত

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে একটি স্বার্থান্বেষী মহল সরকারের বিরুদ্ধে তথ্য লুকোচুরির কল্পনিক ও উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার চালাচ্ছে।

শুক্রবার সকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের ত্রাণ উপকমিটির উদ্যোগে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে প্রতিনিধির মাধ্যমে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণের আগে তাঁর বাসা থেকে ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হয়ে তিনি একথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘জাতীয় ও আন্তর্জাতিক একটি মহল সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টির অপতৎপরতায় লিপ্ত। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে টুইস্ট করে অপপ্রচার তথা গুজব চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই যারা মারা গেছেন, ঢালাওভাবে বলা হচ্ছে সবাই করোনায় মারা গেছে। প্রকৃতপক্ষে মৃত্যুর পর পরীক্ষা করে দেখা যাচ্ছে কেউ পজিটিভ এবং নেগেটিভ দুটোই আসছে। এসব মৃত্যু নিয়েও অনেকে মিথ্যাচার করছে।

তিনি বলেন, করোনা ভাইরাসজনিত সৃষ্ট এ সংকটে ক্রাসিস ম্যানেজার হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সততা ও দক্ষতার যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা ৭৫ পরবর্তী ইতিহাসে নজিরবিহীন।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে ১ লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষনা করেছেন। এছাড়াও ১ কোটি মানুষের মাঝে রেশন কার্ড এবং ৫০ লাখ মানুষের মাঝে নগদ সহায়তা কর্মসূচি চালু করা হয়েছে। ঈদকে সামনে রেখে এসকল উদ্যোগ গ্রামীণ অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

পরে আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটির পক্ষ্য থেকে বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মাঝে প্রতিনিধির মাধ্যমে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সামগ্রী ও চিকিৎসা সরঞ্জাম বিতরণ করা হয়।

এসময় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য একে এম রহমতুল্লাহ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা এবং উপ দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান উপস্থিত ছিলেন।

এবার ভারতের কয়েকটি খবর তুলে ধরছি

মুম্বই, পুণে-সহ হটস্পটগুলিতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়াতে চলেছে মহারাষ্ট্র-দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার এ শিরোনামের খবরে বলা হয়েছে,

মুম্বই, পুণে-সহ রাজ্যের করোনা হটস্পটগুলোতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়াতে চলেছে মহারাষ্ট্র। সূত্রের খবর, পরবর্তী লকডাউনের মেয়াদ হতে পারে ৩১ মে পর্যন্ত। রাজ্যের মধ্যে মুম্বই, পুণে, মালেগাঁও, অওরঙ্গাবাদ এবং সোলাপুর হটস্পট এলাকাগুলোর মধ্যে পড়ছে। এই হটস্পটগুলোতেই লকডাউনের মেয়াদ বাড়তে পারে বলেই ওই সূত্রের খবর।  প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে গেলে রাজ্য সরকার কেন্দ্রকে এ বিষয়ে রিপোর্ট পাঠাবে।

রাজ্যে লকডাউন বাড়ানো হবে কি না তা নিয়ে বৃহস্পতিবারই বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে। ওই বৈঠকের পর শিল্পমন্ত্রী সুভাষ দেশাই জানান, মুম্বই-সহ কয়েকটি শহরে লকডাউনের মেয়াদ বাড়বে। মুম্বই, পুণে মেট্রোপলিটান এলাকা, মালেগাঁও, সোলাপুরের মতো এমন বেশ কয়েকটি জায়গা যেগুলো রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত সেখানেই এই নিয়ম বলবত্ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

রাজ্যের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মুম্বইয়ের। তার পর রয়েছে পুণে, সোলাপুর, অওরঙ্গাবাদ এবং মালেগাঁও। গোটা রাজ্যের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের সংখ্যা উঠে এসেছে এই  জায়গাগুলো থেকেই।  আবার দেশের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি এই রাজ্যেই। দেশের মোট করোনা আক্রান্তের এক-তৃতীয়াংশই এই রাজ্য থেকেই উঠে এসেছে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের হিসেব অনুযায়ী মহারাষ্ট্রে মোট আক্রান্ত ২৭৫২৪।

মৃত্যুর নিরিখেও দেশের মধ্যে শীর্ষে এই রাজ্য। মৃতের সংখ্যা ইতিমধ্যেই হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে এখানে। বৃহস্পতিবারই রাজ্যে নতুন আক্রান্ত হয়েছেন ১৬০২ জন। যা এক দিনে সর্বোচ্চ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪৪ জনের। ফলে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০১৯। গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৪৪ জনের মৃত্যু হয়েছে তার মধ্যে ২৫ জন মুম্বইয়ের, ১০ জন নভি মুম্বইয়ের, পুণেতে ৫ জন, অওরাঙ্গাবাদে ২ এবং পানভেল ও কল্যাণে এক জন করে করোনায় মৃত্যু হয়েছে।

বিশ্বকে একজোট হয়ে লড়তে হবে করোনার বিরুদ্ধে‌, মোদিকে ধন্যবাদ জানিয়ে মন্তব্য গেটস্‌এর-দৈনিক আজকালের এ শিরোনামের খবরে লেখা হয়েছে,

‘‌সারা বিশ্বকে একজোট হয়ে এই মহামারীর মোকাবিলা করতে হবে। সামাজিক এবং অর্থনৈতিক প্রভাব কমিয়ে প্রতিষেধক খুঁজতে হবে বিশ্বকে, সেটার পরীক্ষানিরীক্ষা করতে হবে এবং চিকিৎসা যাতে সবাই পায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। এখানে ভারতের ভূমিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’ নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৃহস্পতিবার হওয়া ভিডিও কনফারেন্সিং–এর জন্য তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়ে শুক্রবার একথাই বললেন মাইক্রোসফট্‌–এর প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস্‌। বৃহস্পতিবার মোদি এবং গেটস্‌ কোভিড–১৯–এর প্রভাব নিয়ে একপ্রস্থ আলোচনা সারেন। সেখানেই মোদি গেটস্‌কে অনুরোধ করেন, কোভিড–১৯–এর মোকাবিলা এবং প্রতিষেধকের খোঁজে বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের জন্য সারা বিশ্বের সহায়তা প্রয়োজন। ভারত কীভাবে নির্দিষ্ট বার্তার মাধ্যমে জনস্বাস্থ্য সুরক্ষার প্রতি নজর দিয়েছে সেকথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন মোদি। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে এখবর জানানো হয়েছিল।শ্রোতাবন্ধুরা! কথাবার্তার আজকের আসর এখানেই গুটিয়ে নিচ্ছি। আবারও কথা হবে আগামী আসরে। ততক্ষণ সবাই ভালো ও সুস্থ থাকুন।

গরিব কল্যাণে নজর দিয়েছে ভারত সরকার, বিশাল অঙ্কের সাহায্য ঘোষণা বিশ্ব ব্যাংকের-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

বিশ্ব ব্যাংকের তরফে জানানো হয়েছে, তারা ভারত সরকারের সঙ্গে মূলত তিনটি ক্ষেত্রে একসঙ্গে কাজ করতে চায়। সেগুলি হল স্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প। ভারতে বিশ্ব ব্যাংকের ডিরেক্টর জুনেইদ আহমেদ জানিয়েছেন,”সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে গিয়ে অর্থনীতির গতি স্লথ হয়েছে। ভারত সরকার শুরু থেকেই গরিবদের কল্যাণে নজর দিয়েছে। চিকিৎসা ব্যবস্থা এবং অর্থনীতিকে পুনরুজ্জীবিত করার একটা সেতুবন্ধনের কাজ করতে চাইছে সরকার। আগে থেকেই দেশে যে পরিকাঠামো আছে, সেই জন ধন, আধার এবং মোবাইল ব্যবহার করে সরকার পরিযায়ী শ্রমিক এবং অসংগঠিত ক্ষেত্রের শ্রমিকদের উন্নয়নে নজর দিয়েছে।” বিশ্ব ব্যাংক সূত্রের খবর, কেন্দ্রের সমাজ কল্যাণ মূলক প্রকল্পগুলিতে সাহায্য করতেই এই অনুদান।#

পার্সটুডে/বাবুল আখতার/১৫

 

ট্যাগ

মন্তব্য