মে ১৮, ২০২০ ১৫:৪৬ Asia/Dhaka

সুপ্রিয় পাঠক/শ্রোতা: ১৮ মে সোমবারের কথাবার্তার আসরে স্বাগত জানাচ্ছি আমি গাজী আবদুর রশীদ। আশা করছি আপনারা প্রত্যেকে ভালো আছেন। আসরের শুরুতে ঢাকা ও কোলকাতার গুরুত্বপূর্ণ বাংলা দৈনিকগুলোর বিশেষ বিশেষ খবরের শিরোনাম তুলে ধরছি। এরপর গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিশ্লেষণে যাবো। বিশ্লেষণ করবেন সহকর্মী সিরাজুল ইসলাম।

বাংলাদেশের শিরোনাম:

  • দেশে রেকর্ড শনাক্তের দিনে সর্বোচ্চ ২১ জনের মৃত্যু -দৈনিক যুগান্তর
  • ৫০ লাখের তালিকায় প্রশ্নের ঊর্ধ্বে সাড়ে ৭ লাখ নাম -দৈনিক প্রথম আলো
  • বিএনপির পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে : ওবায়দুল কাদের, বিএনপির কাজের হিংসায় মরে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ: রিজভী -দৈনিক মানবজমিন 
  • করোনায় নিউইয়র্কে মৃত্যুহীন দিন -দৈনিক সমকাল
  • করোনা প্রতিরোধে জীবন দিলেন আরও এক পুলিশ -দৈনিক ইত্তেফাক
  •  হতাশ গবেষকরা, করোনা ‌সারাতে ব্যর্থ ট্রাম্পের হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ফর্মুলা -বাংলাদেশ প্রতিদিন
  • টিকা তৈরির আগেই করোনা ‘প্রাকৃতিকভাবে চলে যেতে পারে’! -কালের কণ্ঠ

ভারতের শিরোনাম:    

  • আবারও একদিনে সংক্রমিত ৫২৪২, মৃত ১৫৭জন, রেকর্ড সংক্রমণ দেশে -দৈনিক আজকাল
  • দায়ী চিন? করোনা নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্তে ভারত-সহ ৬২ দেশ -দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা
  • শ্রমিকদের ফেরাতে ট্রেনের ব্যবস্থা করুন, মমতাকে চিঠি লিখে আবেদন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

পাঠক/শ্রোতা! এবারে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবরের বিশ্লেষণে যাব। 

কথাবার্তার বিশ্লেষণের বিষয়:

১. করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকার ৫০ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার করে টাকা বিতরণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেই ৫০ লাখের তালিকায় প্রশ্নের ঊর্ধ্বে সাড়ে ৭ লাখ নাম। কি বলবেন আপনি?
২. মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও বলেছেন, ইসরাইলের বিরুদ্ধে যদি যুদ্ধাপরাধের তদন্ত শুরু করে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত তাহলে তাদেরকে পরিণতি ভোগ করতে হবে। পম্পেওর এই হুমকিকে আপনি কিভাবে দেখছেন?

বিশ্লেষণের বাইরে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি খবর:

বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি: মৃত্যু ও আক্রান্ত বাড়ছে

বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতির আপডেট খবরে দৈনিক যুগান্তর লিখেছে, দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩৪৯ জনে। এই সময়ের মধ্যে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৬০২ জন। এ নিয়ে সর্বমোট আক্রান্ত ২৩ হাজার ৮৭০।দেশে একদিনে করোনায় মৃত্য ও আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার হিসাবে এটাই সর্বোচ্চ। এ ছাড়া নতুন করে ২১২ জনসহ মোট ৪ হাজার ৫৮৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

বিএনপির পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে : ওবায়দুল কাদের বিএনপির কাজের হিংসায় মরে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ: রিজভী-দৈনিক মানবজমিন

বাংলাদেশের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী

নেতিবাচক রাজনীতির কারণে বিএনপির পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। আজ সোমবার দুপুরে সরকারি সরকারি বাসবভন থেকে দেয়া এক ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের,‘আমরা উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি দলে দলে মানুষ গ্রামে যাচ্ছেন। এছাড়া ঈদ উপলক্ষে বিভিন্ন মার্কেটের মানুষের অতিরিক্ত ভিড় সংক্রমণের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে। এসময় সবাইকে যার যার অবস্থানে থেকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের ছুটি কাটানোর অনুরোধ করছি। সামান্যতম নিয়মের উপেক্ষা নিজের ও আশপাশের মানুষের জন্য ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। করোনা মহাদুর্যোগে বিএনপি মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে, কাজ করছে এই প্রতিহিংসা মরে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ সরকার- এমন মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আজ সোমবার রাজধানীর শংকরে বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুস সালামের তত্ত্বাবধানে ত্রাণ বিতরণের সময় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় বিএনপির সহ প্রচার সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীমসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, বিএনপি সারা দেশের অসহায় দুস্থ কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। এই প্রতিহিংসায় ভুগছে সরকার। এ কারণে আমাদের নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। গুম করা হচ্ছে। এটা কোন সরকারের নিদর্শন হতে পারে না। যারা ফ্যাসিবাদী, স্বৈরাচার মানুষের কথা শুনতে পারে না তারা এ ধরনের জঘন্য কাজ করতে পারে।তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৫০ লক্ষ মানুষকে আর্থিক সহায়তা করবে। এখানেও চলছে বাটপারি।

নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে কৌশলে ঘরমুখী মানুষ-দৈনিক যুগান্তর

নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও ঈদে কর্মস্থল ছেড়ে নিজ এলাকায় ছুটছে মানুষ। মোড়ে মোড়ে চেকপোস্ট আর বিভিন্ন ধরণের সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কৌশলে বাড়ির পথে রওনা দিচ্ছে। ভেঙে ভেঙে বা অনেক সময় কয়েকজন মিলে মাইক্রোবাস ভাড়া করে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করছে। অনেকে ট্রাক বা এম্বুলেন্সে করেও বাড়ি ফিরছে। তবে অন্যান্য বারের তুলনায় এবারের ঈদযাত্রায় তেমন ভীড় নেই। প্রথমবার সাধারণ ছুটির সময়ে যারা বাড়ি চলে গেছেন তাদের অনেকেই ঢাকায় ফিরতে পারেননি। এবারে গ্রামমুখি মানুষের সিংহভাগই তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক। রাজধানীতে প্রবেশ ও বের হওয়ার ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা আরও বেশি জোরদার করা হয়েছে।

৫০ লাখের তালিকায় প্রশ্নের ঊর্ধ্বে সাড়ে ৭ লাখ নাম-দৈনিক প্রথম আলো

করোনাভাইরাসের কারণে বিপদে পড়া ৫০ লাখ পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে নগদ টাকা দেওয়ার জন্য যে তালিকা করা হয়েছিল, তাতে প্রথম দফায় টিকেছে সাড়ে সাত লাখ হতদরিদ্রের নাম। এ ছাড়া অর্ধকোটি নামের তালিকা থেকে নানা অসংগতি থাকায় শুরুতেই ১০ লাখ নাম বাদ পড়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

ওই সূত্রটি বলছে, উপকারভোগীর নামের সঙ্গে থাকা মোবাইল নম্বর ও জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর স্বয়ংক্রিয়ভাবে যাচাই করে টাকা ছাড় দেওয়া হবে। কিন্তু মাঠপর্যায় থেকে ত্রুটিপূর্ণ তালিকা আসায় তা সুষ্ঠুভাবে শেষ করতে কিছুটা সময় লাগছে। তা ছাড়া কাজটি হচ্ছে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যেমে। তাই তিন ধরনের তথ্যের মিল না হওয়া পর্যন্ত সবাইকে এই টাকা ছাড় করা যাচ্ছে না।

করোনা বিশ্ব: ইউরোপের দেশগুলোতে লকডাউন আরও শিথিল হচ্ছে-দৈনিক কালের কণ্ঠ

বিশ্ব করোনা পরিস্থিতি

মৃত্যুহার নিয়মিতভাবে কমতে থাকায় ইতালি, স্পেনসহ ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশ লকডাউন আরও শিথিলের পদক্ষেপ নিয়েছে। মার্চে লকডাউনে যাওয়ার পর থেকে রোববার ইতালিতে সবচেয়ে কম মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এ দিন পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ১৪৫ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে দেশটি।এটি বিগত কয়েকদিনের দৈনিক মৃত্যুর সর্বোচ্চ সংখ্যা থেকে অনেক কম, ২৭ মার্চ সেখানে ৯০০ জনেরও বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছিল।দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে লকডাউন জারি থাকার পর সোমবার থেকে বার, সেলুনসহ অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফের খোলার অনুমতি দেয়া হয়েছে ইতালিতে। তবে সব জায়গাতেই সামাজিক দূরত্ব মেনে কাজ চালাতে হবে।

'ভয়াবহ পরিস্থিতির' দিকে ব্রাজিল-দৈনিক ইত্তেফাক 

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের রোগীদের সামাল দিতে শিগগিরই স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে। ব্রাজিলের বৃহত্তম শহর সাও পাওলোর মেয়র এমনটি জানিয়েছে। মেয়র ব্রুন কভাস বলেন, শহরের সরকারি হাসপাতালগুলো ৯০ শতাংশ পূর্ণ হয়ে গেছে এবং দুই সপ্তাহের মধ্যে আর কোন জায়গা খালি থাকবে না। ব্রাজিলে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তের মধ্যে অন্যতম সাও পাওলো। শহরটিতে এখন পর্যন্ত প্রায় ৩ হাজারের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া গত শনিবার ব্রাজিল আক্রান্তের দিক দিয়ে স্পেন ও ইতালিতে কাটিয়ে বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে।

দৈনিক সমকালের খবরে লেখা হয়েছে, নিউইয়র্কে রোববার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কেউ মারা যাননি। দুই মাসের মধ্যে এই দিনটি পুরো নিউইয়র্কে স্বস্তি নিয়ে এসেছে।এদিকে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়ে আসায় নিউইয়র্ক রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চলে লকডাউন উঠিয়ে নেওয়ার বিষয়টি জোরালো হচ্ছে। তবে নিউইয়র্ক শহরে খুব দ্রুত লকডাউন উঠিয়ে নেওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন মেয়র বিল ব্লাজিও। এদিকে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের একটি খবরে লেখা হয়েছে, দুটি গবেষণায় দেখা গেল, হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন করোনা মোকাবিলায় কোনও কাজেই আসছে না। ফলে এককথায় বলা চলে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ফর্মুলার সমস্ত আশায় পানি ঢেলে দিলেন গবেষকরা। এই ওষুধ নিয়েই ভারতের সঙ্গে প্রায় সম্পর্কের তিক্ততা বাড়িয়ে ফেলেছিলেন ট্রাম্প। কিন্তু সেই ওষুধই কোনও কাজের নয় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। পরপর কয়েকবারের ট্রায়ালে রীতিমতো হতাশ তারা।

টিকা তৈরির আগেই করোনা ‘প্রাকৃতিকভাবে চলে যেতে পারে!-দৈনিক কালের কণ্ঠ

করোনায় কাঁপছে সারা বিশ্ব। এই মারণ ভাইরাসে সারা বিশ্বের প্রায় ৪৭ লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। করোনার ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের জন্য বিজ্ঞানীরা দিন-রাত কাজ করে যাচ্ছেন। অক্সফোর্ডে একটি ভ্যাকসিনের ট্রায়াল চলছে। যদি তারা সফল হন তাহলে সেপ্টেম্বরের মধ্যে ৩০ মিলিয়ন ভ্যাকসিন তৈরি করবে অক্সফোর্ডের গবেষক দলটি। এছাড়াও চীনে আরো কয়েকটি ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চলছে। ভ্যাকসনি বা ওষুধ নিয়ে যখন দ্রুত কাজ চলছে তখন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রাক্তন এক বিশেষজ্ঞ বলেছেন, কোনো টিকা তৈরির আগেই ভাইরাসটি প্রাকৃতিকভাবে পুড়ে শেষ হয়ে যাতে পারে। মানে নিজ থেকেই এই ভাইরাস ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ক্যান্সার প্রোগ্রামের প্রাক্তন পরিচালক প্রফেসর কারল সিকোরা এই দাবি করে এক টুইট করেছেন

এবার ভারতের কয়েকটি খবর তুলে ধরছি

আবারও একদিনে সংক্রমিত ৫২৪২, মৃত ১৫৭জন, রেকর্ড সংক্রমণ দেশে –দৈনিক চতুর্থ দফার লকডাউন ৩১ মে পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাড়ল উদ্বেগ। আবারও একদিনে রেকর্ড সংক্রমণ হল দেশে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গিয়েছেন ১৫৭জন। ফলে সোমবার মোট করোনা–আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৯৬,১৬৯জন। সোমবার সকালে এই তথ্য দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য এবং পরিবারকল্যাণ মন্ত্রক। মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩০২৯জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৬,৮২৪জন।দৈনিকটির অন্য একটি খবরে লেখা হয়েছে, লকডাউন শেষেও বজায় থাকবে সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং, অবাধ চলাচলে নিষেধাজ্ঞা।

শ্রমিকদের ফেরাতে ট্রেনের ব্যবস্থা করুন, মমতাকে চিঠি লিখে আবেদন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর-দৈনিক সংবাদ প্রতিদিন

বিস্তারিত খবরে লেখা হয়েছেম অভিবাসী শ্রমিকদের ফেরানো নিয়ে বিশেষ সুবিধের জায়গায় নেই মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সরকার। উত্তরপ্রদেশের পর সড়ক দুর্ঘটনায় পরিযায়ী শ্রমিকদের মৃত্যুর খবর এ রাজ্য থেকেও মিলেছে। এবার তাই নিজের রাজ্যে আটকে থাকা অভিবাসীদের ফিরিয়ে নিতে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের দ্বারস্থ হলেন মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান। তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চিঠি লিখে আবেদন জানালেন, ইন্দোরে আটকে থাকা বঙ্গের অভিবাসী শ্রমিকদের ফেরাতে যেন রেল মন্ত্রককে বলে ট্রেনের ব্যবস্থা করেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ এই চিঠি এসে পৌঁছেছে নবান্নে। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে আটকে পড়া বঙ্গের পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরাতে ১০৫ টি ট্রেন চেয়ে রেলমন্ত্রকে আবেদন করেছিল রাজ্য সরকার। সেইসঙ্গে তাঁদের যাবতীয় খরচ বহন করার ঘোষণাও করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকার শিরোনাম-দায়ী চিন? করোনা নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্তে ভারত-সহ ৬২ দেশ

এ খবরে লেখা হয়েছে, কোথা থেকে এবং কী ভাবে এল করোনাভাইরাস। এটা কি মানুষের তৈরি? বিশ্ব জুড়ে সংক্রমণের পর থেকেই এই প্রশ্নগুলো বার বার উঠে এসেছে। কিন্তু ধোঁয়াশা থেকে গিয়েছে গোটা বিষয়টি নিয়েই। আমেরিকা বার বারই দাবি করেছে করোনাভাইরাস তৈরি করেছে চীন। শুধু তাই নয়, এ নিয়ে তথ্য গোপনও করেছে তারা। তবে করোনাভাইরাস মানুষের তৈরি, এ অভিযোগকে সম্পূর্ণ খারিজ করে দিয়েছে বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থা। কিন্তু তার পরেও একটা সন্দেহ থেকে গিয়েছে এই ভাইরাসের উৎস নিয়ে। এ বার করোনাভাইরাস নিয়ে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি তুলে একজোট হল অস্ট্রেলিয়া, জাপান, কানাডা, ব্রিটেন, দক্ষিণ কোরিয়া, ব্রাজিল এবং ভারত-সহ ৬২টি দেশ। করোনাভাইরাস কোথা থেকে এল, তা নিয়ে  নিরপেক্ষ তদন্তের যৌথ উদ্যোগ নিল অস্ট্রেলিয়া এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন। পাশাপাশি, কোভিড-১৯ নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র প্রতিক্রিয়া নিয়েও নিরপেক্ষ তদন্তের আহ্বান জানানো হয়েছে।#

পার্সটুডে/গাজী আবদুর রশীদ/১৮

ট্যাগ

মন্তব্য