আগস্ট ০৫, ২০২০ ১৫:৫৩ Asia/Dhaka

প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি চিঠিপত্রের আসর 'প্রিয়জন'। আজকের আসর উপস্থাপনায় রয়েছি যথারীতি আমি নাসির মাহমুদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: প্রত্যেক আসরের মতো আজও আমি একটি হাদিস শুনিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করতে চাই। হযরত আলী ইবনে হুসাইন বা ইমাম সাজ্জাদ (আ.) বলেছেন, "আমি তাদের ব্যাপারে বিস্মিত যারা ক্ষতির কারণে বিভিন্ন ধরনের খাবার বর্জন করে অথচ তারা কদর্যতার কারণে পাপ বর্জন করে না।"

আকতার জাহান: খুবই মূল্যবান একটি হাদিস শুনলাম। আমরা সবাই পাপ বর্জন করার ব্যাপারে আন্তরিক হব- এ কামনা করে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে। আসরের প্রথম চিঠিটি এসেছে বাংলাদেশের মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানার ইমামপুর গ্রামের 'বিবেক শ্রোতা পরিবার' থেকে। আর লিখেছে মারিয়া খানম মৌরি। এ বন্ধুটি গজারিয়া গার্লস হাই স্কুলের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী। বর্ষার প্রিয় ফুল কদম-এর প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানানোর পর সে লিখেছে-  

নাসির মাহমুদ: রেডিও তেহরানের সংবাদ- আমার একমাত্র ভরসার আঙিনা। সঠিক ও নির্ভরযোগ্য সংবাদ পেতে আমি সবসময় রেডিও তেহরানকে বেছে নেই। গত ২৫ জুন বৃহস্পতিবার রংধনু আসরে "কাক ও কোকিলের ইতিকথা"- গল্পটি আমার ছোটবোন ফৌজিয়া, মাইশা ও ফাতেহা এবং আমার মাকে নিয়ে উপভোগ করলাম। সবশেষে ছোট্ট বন্ধু লামিয়া তাসিনের সাথে পরিচিত হতে পেরে ভালো লাগল।

আশরাফুর রহমান: রংধনু আসর তোমাদের কাছে উপভোগ্য হয়েছে জেনে আমাদেরও ভালো লাগল। তবে তোমরাও কিন্তু এ আসরে অংশ নিতে পারে। আগ্রহী হলে তোমাদের ফোন নাম্বার পাঠিয়ে দাও আমাদের মেইলে। আমরাই যোগাযোগ করে সাক্ষাৎকার নেয়ার চেষ্টা করব।

কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ভুগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ শাহাদত হোসেন পাঠিয়েছেন পরের চিঠিটি। তিনি লিখেছেন- আমি রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান ওয়েবসাইট, ফেসবুক  এবং শর্টওয়েভে শুনে থাকি। কিন্তু কোনো মাধ্যমেই শ্রবণমান স্থিতিশীল নয়। অবশ্য ওয়েবসাইট, ফেসবুক পেইজ ও ম্যাসেঞ্জার লিংকের শ্রবণমান অনেকটা নির্ভর করে শ্রোতা যে দেশে বসবাস করেন, সে দেশের ইন্টারনেট সেবার উপর। এ বিষয়ে রেডিও তেহরানের খুব বেশি কিছু করার নেই। বাংলাদেশে ইন্টারনেট সেবা ক্রমশঃই উন্নত হচ্ছে, তাই ভবিষ্যতে এ সমস্যা কমবে বলেই আশা করি।

নাসির মাহমুদ: বগুড়ার চাঁদনী বাজার থেকে মো. সাইফুল ইসলাম লিখেছন এই চিঠিটি। তিনি লিখেছেন, দীর্ঘ বিরতির পর গত ২৬  জুনের চিঠিপত্রের অনুষ্ঠান 'প্রিয়জন' এর আসরে আমার চিঠির জবাব শুনে আনন্দিত হলাম। শুনলাম আরো কয়েকজন নিয়মিত শ্রোতার চিঠির জবাবের পাশাপাশি শ্রোতাবন্ধু  লাল মিয়ার একটি  সাক্ষাৎকার। লক্ষ্য করছি যে, নতুন আঙ্গিকে 'প্রিয়জন' শুরু করার পর রেডিও তেহরানের প্রতি শ্রোতারা বেশ মনোযোগী হয়েছেন। তারপর কুইজ চালু করাতে শ্রোতারা আরো বেশি উৎসাহিত হয়েছেন বলে মনে করছি। আশা করছি এ ধারাবাহিকতা বজায় রাখবে রেডিও তেহরান। 

আকতার জাহান: যশোর জেলার শার্শা থানার নাভারন রেল বাজারের 'ইন্টারন্যাশনাল রেডিও ফ্রেন্ডস ক্লাব এন্ড লাইব্রেরী' থেকে মো. নুর আলম পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি। সালাম ও শুভেচ্ছা জানানোর পর তিনি লিখেছেন, নতুন শ্রোতাদেরকে রেডিও তেহরান শোনার উৎসাহ দিয়ে আসছি। ইতিমধ্যে একজন নতুন শ্রোতা রেডিও তেহরানে যুক্ত হয়েছেন। তিনি হচ্ছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মালদাহ জেলার শ্রোতা সন্দীপ দা। তিনি নতুন রেডিওতে রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠান শুনছেন এবং তারই একটি ভিডিওচিত্র দিয়েছেন। সেটা আমি আপনাদের কাছে পাঠিয়ে দিলাম।

আশরাফুর রহমান: ভাই নুর আলম, সন্দীপ দা'র ভিডিওটি আমরা দেখেছি। শ্রবণমান বেশ উন্নত বলে মনে হয়েছে। আশা করি তিনি আমাদেরকে রিসিপশন রিপোর্ট পাঠাবেন। আর হ্যাঁ, রেডিও তেহরানের শ্রোতা বৃদ্ধিতে সহযোগিতা করায় আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

অনুষ্ঠানের এ পর্যায়ে আমরা সরাসরি কথা বলতে চাই বাংলাদেশের নারায়ণগঞ্জের শ্রোতা এইচ এম তারেকের সঙ্গে।

আকতার জাহান: কিশোরগঞ্জের খড়ম পট্টি থেকে শরিফা আক্তার পান্না পাঠিয়েছেন এবারের চিঠিটি। তিনি লিখেছেন, ১০ জুলাই শুক্রবার, রেডিও তেহরানের অন্যতম আকর্ষণ ছিল প্রিয়জন। আর সব শ্রোতার মতো আমিও মনোযোগ দিয়ে প্রিয়জন শুনেছি। বর্ধিত কলেবরে এবং শ্রোতার চিঠির সাথে মিলিয়ে গান প্রচার করায় ভীষণ ভালো লেগেছে আজকের প্রিয়জন। একইদিন আলাপন অনুষ্ঠানটিও আমার ভীষণ ভালো লেগেছে। এতে ইরানের উপর অবরোধ ও অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে কথা বলেছেন সাপ্তাহিকের সম্পাদক ও সাংবাদিক গোলাম মোর্তুজা। তাঁর বিশ্লেষণ আমার এমনিতেই ভালো লাগে, আজও লেগেছে।  

আশরাফুর রহমান: বাংলাদেশের পঞ্চগড় জেলার দশমাইল থেকে মোহাম্মদ জুয়েল লিখেছেন পরের চিঠিটি। তিনি লিখেছেন, গত ৯  জুলাই প্রচারিত রংধনু আসরে শ্রদ্ধেয় শাহাদাত হোসেন স্যারের ছেলে শাদমান হোসেন অয়নের সাক্ষাৎকার শুনলাম। সত্যিই অসাধারণ লেগেছে তার সাক্ষাৎকার পর্বটি। আমার বিশ্বাস হচ্ছিল না যে, একজন অল্প বয়সী শিশু এতো সুন্দরভাবে কথা বলতে পারে তাও আবার আন্তর্জাতিক গণমাধ‍্যমে!

নাসির মাহমুদ: ছোট্টবন্ধু অয়নের সাক্ষাৎকারটির প্রশংসা আরও অনেকেই করেছেন। অয়নের জন্য অনেক অনেক দোয়া ও ভালোবাসা রইল।

আসরের শেষ চিঠিটি পাঠিয়েছেন বেতার শ্রোতা ফাউন্ডেশনের মডারেটর মো: হোসাইন মুসা। তিনি জানিয়েছেন, ২০২০ সালের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত বেতার শ্রোতা ও বেতার শ্রোতাদের সন্তানদেরকে "শিক্ষা সম্মাননা" প্রদানের মাধ্যমে লেখাপড়ায় উৎসাহ প্রদান ও মেধা বিকাশের উদ্যোগ নিয়েছে বেতার শ্রোতা ফাউন্ডেশন।  

আকতার জাহান: ভাই হোসাইন মুসা, বেতার শ্রোতা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে আপনারা যে উদ্যোগ নিয়েছেন তার সাফল্য কামনা করছি।

আমাদের অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানিয়ে আরও যারা চিঠি লিখেছেন আমি তাদের কয়েকজনের নাম-ঠিকানা জানিয়ে দিচ্ছি।

  • মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার ইমামপুর থেকে ফিওয়ানা রহমান ও আছিয়া আক্তার ইতি
  • নারায়ণগঞ্জ জেলার আলী সাহারদি থেকে তাজরীন আহমেদ তমা
  •  ,টি, এম,আতাউর রহমান রঞ্জু লিখেছেন 'আলোকিত মানুষ চাই' আন্তর্জাতিক বেতার শ্রোতা ক্লাব, রংপুর থেকে।
  • এবং ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার ভালোবাসি রেডিও শ্রোতা ক্লাব থেকে এম. জামাল আহমেদ সুবর্ণ।

আশরাফুর রহমান: তো শ্রোতাবন্ধুরা, দেখতে দেখতে আমাদের সকল আয়োজন এক এক করে শেষ হয়ে এসেছে। আপনারা ভালো ও সুস্থ থাকুন এ কামনায় গুটিয়ে নিচ্ছি প্রিয়জনের আজকের আসর।

নাসির মাহমুদ: কথা হবে আবারো আগামী আসরে।#

 

 

ট্যাগ

মন্তব্য