সেপ্টেম্বর ০৮, ২০২০ ১৫:৫৬ Asia/Dhaka

প্রিয় শ্রোতাবন্ধুরা, সবাইকে প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি আপনাদেরই চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন। আজকের আসর উপস্থাপনায় রয়েছি যথারীতি আমি নাসির মাহমুদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: প্রত্যেক আসরের মতো আজও আমি একটি হাদিস শুনিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করতে চাই। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) বলেছেন, তোমাদের মধ্যে শক্তিধর ব্যক্তি হলো সে, যে রাগের সময় আত্মসংবরণ করতে পারে আর সবচেয়ে বড় ভারোত্তলনকারী হলো সে, যে প্রতিশোধ গ্রহণের ক্ষমতা থাকার পরও ক্ষমা প্রদর্শন করে।

আকতা জাহান: খুবই মূল্যবান একটি হাদিস শুনলাম। আমরা সবাই রাগকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করব এবং ক্ষমা করার মানসিকতা অর্জন করব- এ কামনায় নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে। আসরের প্রথম চিঠিটি এসেছে কুয়েত সিটি থেকে আর পাঠিয়েছেন শাহজালাল হাজারী। এ শ্রোতাবন্ধু লিখেছেন, পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে গান, কবিতা, কুরবানির ইতিহাস ও শিক্ষা দিয়ে সাজানো রংধনু অনুষ্ঠানটি এক কথায় অনবদ্য, তথ্য সমৃদ্ধ ও অনেক শিক্ষামূলক ছিল যা আমার মন কেড়েছে। এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জানতে পেরেছি- সর্বোচ্চ ত্যাগের মাধ্যমে আল্লাহর সান্নিধ্যের মাধ্যমেই ইহকালে শান্তি আর পর কালে মুক্তি সম্ভব। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি অনুষ্ঠানের উপস্থাপকবৃন্দ এবং আশরাফুর রহমান ভাইকে এত সুন্দর তথ্য সমৃদ্ধ বিশেষ অনুষ্ঠানটি আমাদের উপহার দেওয়ার জন্য।

নাসির মাহমুদ: বাংলাদেশের সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর থানার সূচনা সমাজ কল্যাণ সংঘের সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান পাঠিয়েছেন পরের চিঠিটি। তিনি লিখেছেন- আপনাদের অনুষ্ঠান থেকে অনেক জ্ঞান অর্জন করতে পারছি। দীর্ঘদিন যাবৎ কুইজ বন্ধ ছিল তা আবার পুনরায় চালু হওয়ায় আমরা খুবই খুশি। আরও খুশি যে প্রতি মাসে একজন করে শ্রেষ্ঠ শ্রোতা নির্বাচন করা হবে। এতে করে আমরা যারা নিয়মিত চিঠি লিখি না তারা এখন থেকে নিয়মিত চিঠি লেখার উৎসাহ পাব। 

আশরাফুর রহমান: ফরিদপুর জেলার মধুখালী থানার জগন্নাথদী গ্রাম থেকে এ মেইলটি পাঠিয়েছেন এম এম গোলাম সারোয়ার। তিনি ওয়ার্ল্ড রেডিও লিসেনার্স ক্লাবের সভাপতি।

আকতার জাহান: গোলাম সারোয়ার ভাই একসময় আমাদের কাছে প্রচুর চিঠি লিখতেন। তো এ চিঠিতে তিনি কী লিখেছেন?

আশরাফুর রহমান: রেডিও তেহরান সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে গিয়ে গোলাম সারোয়ার ভাই লিখেছেন, রেডিও তেহরান একটি ইসলামী প্রচার মাধ্যম। এই বেতারকে নিয়ে আমি খুব গর্ববোধ করি। শুধু তাই নয়, আমি সৌভাগ্যবান এই বেতারের ভক্ত শ্রোতা হিসেবে।"

নাসির মাহমুদ: এরপর এ শ্রোতাবন্ধু লিখেছেন, আপনাদের প্রতিটি অনুষ্ঠান ভাল লাগার মতো। বিশ্বসেরা ও তথ্যবহুল সংবাদ পরিবেশনা আমাকে মুগ্ধ করে। এছাড়াও শ্রোতা নন্দিত  'প্রিয়জন' অনুষ্ঠান উপভোগ করার মতো অনুষ্ঠান। সাক্ষাৎকার অনুষ্ঠানও

অভিজ্ঞতাকে সমৃদ্ধ করে। যা হোক, রেডিও তেহরান আমার জীবনের একটি অংশ। বস্তুনিষ্ঠতা, সততা, সাহসিকতা, নিষ্ঠা এবং অনুষ্ঠান প্রচারের নৈপুণ্য রেডিও তেহরানকে বিশ্ব দরবারে এক নম্বর ও একমাত্র ইসলামী প্রচার সংস্থা হিসেবে পরিচিত করে তুলেছে। রেডিও তেহরান ইসলাম বিরোধী শক্তিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে টিকে থাক। আর এগিয়ে যাক লক্ষপানে এই প্রত্যাশা অনুক্ষণ।

আকতার জাহান: রেডিও তেহরান সম্পর্কে গোলাম সারোয়ার ভাইয়ের কথাগুলো খুব ভালো লাগল। এ শ্রোতাবন্ধুর মতোই দীর্ঘদিন পর চিঠি লিখেছেন আমাদের আরেকজন শ্রোতা। তার নাম মোঃ আজিনুর রহমান লিমন। এ শ্রোতাবন্ধুর স্থায়ী ঠিকানা হচ্ছে- নীলফামারী জেলার ডিমলা থানার চাপানী হাট, মিয়া পাড়ায়।

নিজেকে রেডিওর একজন ভক্ত শ্রোতা হিসেবে উল্লেখ করে লিমন ভাই লিখেছেন, দেশ-বিদেশের বাংলা বেতারগুলোর সাথে আছি সবসময়। একসময় রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠানগুলো আমার বাবাসহ পরিবারের সকলে মিলে একসাথে শুনতাম। তেলওয়াতে কোরআন ও হাদীসের বাণী ও বিশ্বসংবাদ ছিল আমাদের প্রিয় অনুষ্ঠান। আর প্রিয়জন ছিল আমার প্রাণের প্রিয়। দীর্ঘদিন পরে আবারো অ্যাকটিভ হতে যাচ্ছি রেডিও তেহরানের সকল অনুষ্ঠানের সাথে। সকল শ্রোতাবন্ধু ও আপনাদের কাছে দোয়া চেয়ে আজকের মত এখানেই শেষ করছি।

আশরাফুর রহমান: পুরোনো শ্রোতাবন্ধুরা আবারো সক্রিয় হচ্ছেন দেখে আমাদেরও ভালো লাগছে। আসরের এ পর্যায়ে আমরা কথা বলব বাংলাদেশের যশোরের  পুরোনো শ্রোতা মোঃ নুরুল ইসলামের সঙ্গে।  

নাসির মাহমুদ: আসরের পরের মেইলটি পাঠিয়েছেন কিশোরগঞ্জের খড়ম পট্টি থেকে শ্রোতাবোন শরিফা আক্তার পান্না।

২২ জুন তারিখে হযরত আলী (আ.) এবং হযরত ফাতেমা (সা. আ.)-এর বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে প্রচারিত বিশেষ অনুষ্ঠানের প্রশংসা করে তিনি লিখেছেন, এ অনুষ্ঠান না শুনলে অনেক কিছুই জানা হতো না। বিশেষ করে, দেন মোহরানার বিষয়ে হযরত আলীর সামর্থ্য ও চেষ্টা এবং এ বিষয়ে হযরত ফাতেমার প্রত্যাশা জেনে অবাক হলাম। মহানবী-তনয়া নতুন জীবনের সূচনালগ্নেও পিতার উম্মতের কথা ভুলেন নাই। সত্যিই তিনি সর্বকালের সেরা নারী। আল্লাহ আমাদেরকে হযরত ফাতেমার আদর্শ অনুসরণের সৌভাগ্য দিন- সে প্রত্যাশাই করি। আর এমন একটি বিষয়ে সুন্দর একটি অনুষ্ঠান প্রচার করায় রেডিও তেহরানের বাংলা বিভাগের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

আশরাফুর রহমান: একই অনুষ্ঠানের প্রশংসা করে এই চিঠিটি লিখেছেন- নারায়ণগঞ্জের আলী সাহারদির উৎস ডিএক্স কর্ণারের প্রেসিডেন্ট এইচ, এম, তারেক। পাশাপাশি তিনি লিখেছেন, আমার অনুরোধমত সোনালি নীড় অনুষ্ঠানের পর্বগুলো ওয়েবসাইটে আপলোড করার জন্য রেডিও তেহরানের প্রতি কৃতজ্ঞাতা প্রকাশ করছি। সবশেষে এ শ্রোতাভাই একটি প্রশ্ন করেছেন। জানতে চেয়েছেন- ইরানে আয়ুর্বেদ চিকিৎসা প্রচলিত আছে কিনা?

আকতার জাহান: হ্যাঁ ভাই, ইরানে আয়ুর্বেদ চিকিৎসা প্রচলিত আছে। প্রশ্ন করার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

আসরের এবারের মেইলটি এসেছে রাজবাড়ী জেলার খোশবাড়ী থেকে। আর পাঠিয়েছেন আমাদের নিয়মিত শ্রোতা ও পত্রলেখক শাওন হোসাইন। তিনি লিখেছেন, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ ও তথ্যবহুল অনুষ্ঠান প্রচারের জন্য রেডিও তেহরান শ্রোতাদের নিকট দিন দিন অধিক থেকে অধিকতর জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। তথ্য প্রযুক্তির ব্যাপক বিস্তার ও আকাশ সংস্কৃতির প্রভাবে বাংলা ভাষায় অনুষ্ঠান সম্প্রচারকারী আন্তর্জাতিক বেতার কেন্দ্রগুলো দিন দিন শ্রোতাদের নিকট থেকে দুরে সরে যাচ্ছে যা রেডিও ডিএক্সারদের জন্য সত্যি দুঃখজনক। পক্ষান্তরে রেডিও তেহরান শ্রোতাদের মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে নানাবিধ উদ্যোগ নিচ্ছে। গত ২৪ জুলাই ওয়েবসাইট মারফত জানতে পারলাম- অনুষ্ঠান শুনে গঠনমূলক মতামত প্রদানকারীদের মধ্যে থেকে প্রতি মাসে একজন শ্রোতাকে পুরস্কৃত করা হবে যা শ্রোতাদের জন্য অনেক আনন্দের খবর। এই ধরনের উদ্যেগের ফলে শ্রোতারা বেশি বেশি গঠনমূলক চিঠি লিখতে ও অনুষ্ঠান শুনতে আরও বেশী আগ্রহী হবে। আর শ্রোতাদের গঠনমূলক চিঠি অনুষ্ঠানের মান বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে বলে আশা করি।

নাসির মাহমুদ: আমাদের অনুষ্ঠান শোনার পাশাপাশি শ্রবণমান রিপোর্ট পাঠিয়ে যারা ভূমিকা রাখছেন- এ পর্যায়ে আমরা তাদের নাম-ঠিকানা জানিয়ে দিচ্ছি।

         ভারতের ছত্তিশগড় থেকে আনন্দমোহন বাইন

         পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ থেকে মুহাম্মদ নাজিমউদ্দিন ও শিবেন্দু পাল।

         একই প্রদেশের পশ্চিম মেদিনিপুর থেকে সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্য

আশরাফুর রহমান:

         টাঙ্গাইল থেকে শ্রবণমান রিপোর্ট পাঠিয়েছেন আবু তাহের

         কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারি থেকে আবদুল কুদ্দুস মাস্টার।

         শাহাদত হোসেন পাঠিয়েছেন গুরুদয়াল সরকারি কলেজ, কিশোরগঞ্জ থেকে।

         এবং রাশিয়ার সারাতোভ থেকে দিমিত্রি এলাগিন।

আকতার জাহান: তো যারা মতামত ও শ্রবণমান রিপোর্ট জানিয়ে চিঠি পাঠিয়েছেন তাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়ে গুটিয়ে নিচ্ছি চিঠিপত্রের আজকের আসর।

নাসির মাহমুদ: কথা হবে আবারো পরবর্তী আসরে। সে পর্যন্ত ভালো ও সুস্থ থাকুন।

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/৬

ট্যাগ

মন্তব্য