আগস্ট ৩১, ২০২১ ১৪:৪৮ Asia/Dhaka

শ্রোতা বন্ধুরা, আপনাদের সবাইকে প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি চিঠিপত্রের আসর 'প্রিয়জন'। আজকের অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় রয়েছি আমি গাজী আব্দুর রশীদ, আমি আকতার জাহান এবং আমি আশরাফুর রহমান।

আশরাফুর রহমান: প্রত্যেক আসরের মতো আজও অনুষ্ঠানের শুরুতেই আমি একটি বাণী শোনাতে চাই। আমিরুল মোমেনীন হযরত আলী (আ.) বলেছেন, “মানুষের নির্বুদ্ধিতার জন্য সে অন্য লোকের ছিদ্রান্বেষণ করে এবং নিজের মধ্যে লুকানো দোষকে উপেক্ষা করে।”

আকতার জাহান: আমরা সবাই অন্যের ছিদ্রান্বেষণ করা থেকে বিরত থাকব এবং নিজের দোষ-ত্রুটি শুধরে নেয়ার চেষ্টা করব- এ প্রত্যাশা করে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে।

আসরের প্রথম মেইলটি পাঠিয়েছেন বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার গেন্ডারিয়া থেকে ব্যাংক কর্মকর্তা ও মুক্তমনা কলামিস্ট মো. জিল্লুর রহমান। 

নিজেকে রেডিও তেহরানের শ্রোতা এবং ওয়েবসাইটের পাঠক হিসেবে উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন, “রেডিও তেহরান নৈতিক মূল্যবোধ ও চরিত্র গঠনে অনন্য একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। যত শুনি ততই মুগ্ধ হই। আমি সকালের একঘণ্টা প্রাতঃভ্রমণের সময় পার্সটুডের আর্কাইভ থেকে অনুষ্ঠান শুনি। হাঁটতে হাঁটতে কখন যে রেডিও তেহরানের অনুষ্ঠান শেষ হয়, তা টের-ই পাই না। অনুষ্ঠানের পরতে পরতে কোরআন ও হাদিসের রেফারেন্স থাকে, যা সত্যিই অনন্য ও মনোমুগ্ধকর।” 

পাশ্চাত্যের ষড়যন্ত্র উপেক্ষা করে রেডিও তেহরান শ্রোতা ও পাঠকদের মাঝে আলোকবর্তিকা হিসেবে অনন্য হয়ে থাকুক অনন্তকাল, সে দোয়া ও প্রত্যাশা করে চিঠিটি শেষ করেছেন এ শ্রোতাবন্ধু।

গাজী আব্দুর রশীদ: জিল্লুর রহমান ভাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ চমৎকার মতামতটির জন্য। আশা করি এভাবেই আমাদেরকে প্রেরণা জোগাবেন।

আসরের পরের মেইলটি এসেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণা জেলার মহেন্দ্রনগর অগ্রগামী ক্লাব থেকে। আর পাঠিয়েছেন আমাদের নিয়মিত পত্রলেখক ভাস্কর পাল।
ভালোবাসা ও প্রীতিময় শুভেচ্ছা জানাবার পর তিনি লিখেছেন, “গত ৩ আগস্ট 'গল্প ও প্রবাদের গল্প' অনুষ্ঠানে প্রচারিত 'ডাল দেখেছ জাল দেখনি' গল্পটি আমার কাছে ভীষণ আকর্ষণীয় লেগেছে। গল্পটির বিষয়বস্তু ভীষণভাবে শিক্ষামূলক। জীবনে চলার পথে আমাদের যে সকল শিক্ষাকে সাথে নিয়ে চলা উচিত, সেই শিক্ষা উঠে আসে 'গল্প ও প্রবাদের গল্প' অনুষ্ঠানে। এত সুন্দর মনোমুগ্ধকর গল্পের ডালি নিয়ে হাজির হওয়ার জন্য রেডিও তেহরানকে ধন্যবাদ জানাই।”

আশরাফুর রহমান: 'গল্প ও প্রবাদের গল্প'সহ আমাদের সকল আয়োজনে সাথে থাকার জন্য ভাস্কর পাল আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোঃ শাহাদত হোসেন পাঠিয়েছেন এবারের চিঠিটি।

তিনি লিখেছেন, ‘আধুনিক গণমাধ্যম হিসেবে রেডিও তেহরান এক নতুন দিগন্ত উন্মোচন করেছে। একে তো রেডিও অনুষ্ঠান শর্টওয়েভ, ওয়েবসাইট, ফেসবুক পেইজ ও ইউটিউবে লাইভ প্রচার করছে; অন্যদিকে এসব অনুষ্ঠান ওয়েবসাইটে আপলোড করে পরে শোনার বা পড়ার সুযোগ করে দিচ্ছে। ফলে যার যে মাধ্যমে সুবিধা, যার যখন সুবিধা তিনি সে মাধ্যমে, কাঙ্ক্ষিত সময়ে অনুষ্ঠান শুনতে বা পড়তে পারছেন। এত বহুমুখীভাবে শ্রোতা-পাঠকদের কাছে পৌঁছার কারণে রেডিও তেহরান সাম্প্রতিককালে অত্যন্ত জনপ্রিয় ও শক্তিশালী গণমাধ্যমে পরিণত হয়েছে।”

চিঠির শেষাংশে তিনি রেডিও তেহরানের ওয়েবসাইটে ‘শ্রোতাদের মতামত’ বিভাগ চালু করায় ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

আকতার জাহান: পার্সটুডে ডটকমে ‘শ্রোতাদের মতামত’ বিভাগে প্রায় প্রতিদিনই গুরুত্বপূর্ণ চিঠি আপলোড করা হচ্ছে। এতে আমাদের ভিজিটর যেমন বাড়ছে তেমনি শ্রোতাবন্ধুরাও চিঠি লিখতে উৎসাহ পাচ্ছেন। শাহাদত ভাইকে ধন্যবাদ সুন্দর সুন্দর চিঠি লিখে মতামত বিভাগটি সমৃদ্ধ করার জন্য।

গাজী আব্দুর রশীদ: বাংলাদেশের জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার পূর্ব নলছিয়া থেকে হারুন অর রশীদ পাঠিয়েছেন এই মেইলটি। সালাম ও শুভেচ্ছা জানাবার পর তিনি লিখেছেন, “মানুষ আনন্দে বাঁচে, প্রাপ্তিতে পূর্ণতা পায় মানুষের জীবন। এই আনন্দ অবগাহনে তাইতো মানুষের নানা আয়োজন। আমি রেডিও তেহরান শুনি। হৃদয়ের গহীনে যা আমাকে প্রশান্তিময় সুখ আর প্রাপ্তির আনন্দে উদ্বেলিত করে। কন্টকময় পৃথিবীতে সততার সাথে আমার চলার পথকে মসৃণ করে।”

রেডিও তেহরানকে একটি আলোকিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে উল্লেখ করে হারুন ভাই লিখেছেন, 'কুরআনের আলো', 'আদর্শ মানুষ গড়ার কৌশল', 'স্বাস্থ্যকথা' এবং রংধনু আসরে ছোট ছোট শিক্ষণীয় মজার ও আকর্ষণীয় গল্পগুলো শুনে সুখময় আলোকিত সুন্দর জীবন গঠন করা সম্ভব। 

আশরাফুর রহমান: রেডিও তেহরান সম্পর্কে বরাবরের মতোই চমৎকার মূল্যায়নের জন্য হারুন অর রশীদ আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

আকতার জাহান: আশরাফ ভাই, বেশকিছু চিঠির জবাব তো দেওয়া হলো। এবার কোনো শ্রোতাবন্ধুর সাথে সরাসরি কথা বলতে ইচ্ছে করছে। কেউ কি এ মুহূর্তে আমাদের সাথে যোগ দেবেন?

আশরাফুর রহমান: হ্যাঁ, টেলিফোনের অপর প্রান্তে এ মুহূর্তে অপেক্ষা করছেন কিশোরগঞ্জের শ্রোতাবন্ধু আতিকুল ইসলাম আতিক। তার পুরো পরিচয়টা বরং তার কাছ থেকেই জানা যাক। (

আশরাফুর রহমান:  ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার চুপী থেকে হাফিজুর রহমান পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি। ‘আদর্শ মানুষ গড়ার কৌশল’ অনুষ্ঠানটি সম্পর্কে তিনি লিখেছেন, “শিশুরাই জাতির ভবিষ্যত। তাই তাদের উন্নত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে ও সুশিক্ষিত করতে দরকার সুষ্ঠু ও পরিকল্পিত শিক্ষা আর প্রশিক্ষণ। পূর্ণাঙ্গ ও শ্রেষ্ঠধর্ম ইসলাম জীবনের সব ক্ষেত্রের মত এক্ষেত্রেও দিয়েছে জরুরি দিক-নির্দেশনা। শিশু-কিশোরদের কিভাবে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা যায় তার এক অনুপম দর্পন হলো রেডিও তেহরানের সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান ‘আদর্শ মানুষ গড়ার কৌশল’।”   

গাজী আব্দুর রশীদ: ভাই হাফিজুর রহমান, ‘আদর্শ মানুষ গড়ার কৌশল’ অনুষ্ঠানটি ভালো লাগছে জেনে আমাদেরও ভালো লাগছে। আশা করি চিঠি লেখা অব্যাহত রাখবেন।
বাংলাদেশের পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার মল্লিকাদহ বালাপাড়া গ্রাম থেকে হরিদাস রায় পাঠিয়েছেন একটি মেইল। 

প্রীতি ও শুভেচ্ছা জানানোর পর তিনি লিখেছেন, ‘আমি রেডিও তেহরান-এর একজন নবীন শ্রোতা। এ বেতারের সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে ইরান ভ্রমণ, পাশ্চাত্যের জীবন ব্যবস্থা, স্বাস্থ্যকথা, রংধনু আসর এবং চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন আমার বেশি ভালো লাগে।’

আকতার জাহান: শ্রোতাবন্ধু হরিদাস রায়কে ধন্যবাদ মতামতসমৃদ্ধ চিঠিটির জন্য।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার নওপাড়া থেকে নিজামুদ্দিন সেখ পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, “আপনাদের অনুষ্ঠান যেমন জ্ঞান পিপাসুদের জ্ঞানের খোরাক জোগায় তেমনি সঠিক ও বাস্তব তথ্য তুলে ধরে দূর করে অন্ধ বিশ্বাসীদের মনের অমানিশা। রেডিও তেহরানের এমনই একটি উল্লেখযোগ্য অনুষ্ঠান হচ্ছে 'পাশ্চাত্যে জীবন ব্যবস্থা'। আমাদের দেশের জনগণ পাশ্চাত্যের দেশগুলো সম্বন্ধে অনেক উচ্চ ধারণা পোষণ করে থাকে; সভ্য, শিক্ষিত ও উন্নত জাতি হিসেবে তাদের মনে করে থাকে। কিন্তু রেডিও তেহরানের বাংলা অনুষ্ঠানের সংস্পর্শে এসে 'পাশ্চাত্যে জীবন ব্যবস্থা' নামক অনুষ্ঠান শুনে জানতে পারলাম পাশ্চাত্যের দেশগুলোর জীবন ও সমাজ ব্যবস্থা কতটা ভয়াবহ ও ঝুঁকিপুর্ণ।”

আশরাফুর রহমান: ভাই নিজামুদ্দিন সেখ, আমাদের অনুষ্ঠান থেকে পাশ্চাত্যের দেশগুলোর প্রকৃত চিত্র জানতে পারছেন জেনে ভালো লাগল। চিঠি লেখার জন্য আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

কাতারের রাজধানী দোহা থেকে এইচ এম কাউসার পাঠিয়েছেন এবারের চিঠিটি। এ শ্রোতাবন্ধুর দেশের বাড়ি বাংলাদেশের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা থানার বগাবাড়ি গ্রামে।

তিনি লিখেছেন, “৯ আগস্ট তারিখে প্রচারিত প্রিয়জন অনুষ্ঠান শুনলাম, খুব ভালো লাগল।  এ যেন নতুন এবং পুরাতন শ্রোতার এক মিলন মেলা। এক-একটা মেইল প্রমাণ করে  শ্রোতা বন্ধুরা রেডিও তেহরানকে কতটা ভালোবাসে! আমার জানতে চাওয়া বিষয়টি হলো- শ্রোতাবন্ধুরা যে প্রিয়জন অনুষ্ঠানে টেলিফোনে সাক্ষাৎকার দেন তা আপনারা কতদিন পর্যন্ত সংরক্ষণ রাখেন? আমি ২০০০ অথবা ২০০১ সালে প্রিয়জনে একটি সাক্ষাৎকার দিয়ে ছিলাম তা কি আপনাদের সংরক্ষণে আছে?”

গাজী আব্দুর রশীদ: না ভাই, ২০০০ কিংবা ২০০১ সালের কোনো সাক্ষাৎকার আমাদের সংরক্ষণে নেই। আমাদের পুরোনো ওয়েবসাইটে ২০১২ সাল থেকে প্রিয়জন অনুষ্ঠান আপলোড করা আছে। তবে সার্ভার পরিবর্তনের কারণে কিছু ফাইল নষ্ট হয়ে গেছে। অবশ্য নতুন ওয়েবসাইটে আড়াইশ’রও বেশি পর্ব সংরক্ষণ করা আছে। আপনি আগ্রহী হলে আবারো সাক্ষাৎকার দিতে পারেন। নিয়মিত অনুষ্ঠান শোনার পাশাপাশি চিঠি লেখার জন্য কাউসার ভাই আপনাকে ধন্যবাদ।

আকতার জাহান: আজকের আসরের শেষ চিঠিটি এসেছে ফরিদপুরের মধ্য আলিপুরের নন্দন বেতার শ্রোতা ক্লাব থেকে। আর পাঠিয়েছেন মোঃ আফজাল আলী খান। 
তিনি লিখেছেন, “আমি রেডিও তেহরানের অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতার নবম পর্বে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হয়েছিলাম। কিন্তু এখনও পর্যন্ত আমার প্রত্যাশিত পুরস্কার পাইনি। এ বিষয়ে আমাকে অবহিত করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানাচ্ছি।”

আশরাফুর রহমান: ভাই মোঃ আফজাল আলী খান, চলতি বছর কুইজ ও শ্রেষ্ঠ শ্রোতা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী কারো কাছেই আমরা পুরস্কার পৌঁছাতে পারিনি করোনা মহামারির কারণে ডাকযোগাযোগ বন্ধ থাকায়। আর এসময় তেহরান থেকে কেউ দেশেও যেতে পারছেন না। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বিজয়ী সবার কাছেই পুরস্কার পৌঁছানো হবে ইনশাআল্লাহ। চিঠি লেখার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

গাজী আব্দুর রশীদ: এবারে কয়েকজন ডিএক্সার বন্ধুর নাম-ঠিকানা জানিয়ে দিচ্ছি যারা আমাদের অনুষ্ঠান শুনে শ্রবণমান রিপোর্ট পাঠিয়েছেন। 

  • ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ থেকে এসএম নাজিমউদ্দিন ও নিজামুদ্দিন সেখ
  • বর্ধমান জেলার চুপী থেকে হাফিজুর রহমান 
  •  দক্ষিণ দিনাজপুর থেকে রতন কুমার পাল ও বিধান চন্দ্র সান্যাল। 
  • ছত্তিশগড়ের দুর্গ থেকে আনন্দমোহন বাইন
  • বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ থেকে মো. শাহাদত হোসেন ও শরিফা আকতার পান্না
  • এবং শাওন হোসাইন রাজবাড়ী থেকে

আকতার জাহান: যারা অনুষ্ঠান শোনার পাশাপাশি কষ্ট করে শ্রবণমান রিপোর্ট পাঠিয়েছেন তাদের সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তো বন্ধুরা, অনুষ্ঠান থেকে বিদায় নেয়ার আগে আজও রয়েছে একটি গান। গানের কথা লিখেছেন মহিউদ্দিন মহি, সুর করেছেন হাবিব মোস্তফা আর গেয়েছেন বাউল রাজু মন্ডল।

আশরাফুর রহমান: তো বন্ধুরা, আপনারা গানটি শুনতে থাকুন আর আমরা বিদায় নিই প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে।#  

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/৩১

ট্যাগ