অক্টোবর ১৯, ২০২১ ১৭:২৩ Asia/Dhaka

শ্রোতাবন্ধুরা, আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক প্রীতি আর শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করছি চিঠিপত্রের আসর প্রিয়জন। চিঠিপত্র, মতামত, সাক্ষাৎকার ও গান দিয়ে সাজানো আজকের প্রিয়জন উপস্থাপনায় রয়েছি আমি আশরাফুর রহমান, আমি আকতার জাহান এবং আমি রেজোয়ান হোসেন।

রেজোয়ান হোসেন: আসরের শুরুতেই আমি একটি হাদিস শোনাতে চাই। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) বলেছেন,  “ধন্য সেই ব্যক্তি যে মানুষের সাথে সৎ আচরণ করে, তাদের উপকার করে আর নিজ অনিষ্টতাকে তাদের থেকে ফিরিয়ে রাখে।"

আকতার জাহান: খুবই মূল্যবান ও দিকনির্দেশনামূলক একটি হাদিস শোনালেন রেজোয়ান ভাই। আমরা সবাই এই হাদিসের আলোকে নিজেদের জীবন গড়ার চেষ্টা করব- এ আশাবাদ ব্যক্ত করে নজর দিচ্ছি চিঠিপত্রের দিকে।

আসরের প্রথম চিঠিটি পাঠিয়েছেন বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জের গুরুদয়াল সরকারি কলেজের সহকারী অধ্যাপক মোঃ শাহাদত হোসেন। ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের জাতীয় সম্প্রচার সংস্থা বা আইআরআইবি’র প্রধান হিসেবে নিয়োগ পাওয়া ড. পেইমান জেবেলিকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি চিঠিটি পাঠিয়েছেন।

আশরাফুর রহমান: শাহাদত ভাই লিখেছেন, আমরা যারা রেডিও তেহরানসহ আইআরআইবি’র শ্রোতা বা পাঠক, তাদের কাছে ড. জেবেলির নিয়োগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা, শ্রোতাবান্ধব বিভিন্ন পদক্ষেপ নেয়ার ক্ষেত্রে আইআরআইবি’র প্রতিটি বিভাগেরই তাঁর সহযোগিতার প্রয়োজন হবে। আমরা আশা করি, ড. পেইমান জেবেলি’র কার্যকালে আইআরআইবি অতীতের মতই শ্রোতা-পাঠকদেরকে উন্নত সেবা দিয়ে যাবে। গ্রহণ করবে নতুন নতুন প্রযুক্তির সুবিধা। শ্রোতা ও পাঠকদের সাথে বাড়িয়ে দেবে যোগাযোগ। হয়ে উঠবে একটি আদর্শ গণমাধ্যম।”

রেজোয়ান হোসেন: আইআরআইবি বিশ্ব কার্যক্রমের প্রধান ড. জেবেলি এই সংস্থার প্রধান হিসেবে নিয়োগ পাওয়ায় অভিনন্দন জানিয়ে পরের মেইলটি পাঠিয়েছেন বিধান চন্দ্র সান্যাল। এ শ্রোতাবন্ধুর ঠিকানা ঢাকা কলোনী, বালুরঘাট, দক্ষিণ দিনাজপুর, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত।

তিনি লিখেছেন, “আইআরআইবি'র প্রধান হিসেবে ড. পেইমান জেবেলি নিযুক্ত হওয়ায় তাঁকে অভিনন্দন ও স্বাগত জানাই। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস অভিজ্ঞ ড. জেবেলির নেতৃত্বে আইআরআইবি আরো জনপ্রিয় হবার পাশাপাশি এই সম্প্রচার সংস্থার মহান আদর্শ ও কর্তব্য যথাযথ বাস্তবায়িত হবে। ড. জেবেলি আইআরআইবিকে আরো তৎপর করে বিশ্বের সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর মুখোশ উন্মোচন করবেন এবং বিশ্ব মানবতা ও বিশ্ব মুসলিম ঐক্যের স্বার্থে কাজ করে যাবেন যাতে করে বিশ্বব্যাপী ইসলামী জাগরণে ইরান আরও সুদূরপ্রসারী ভূমিকা গ্রহণ করতে পারে।”

আকতার জাহান: আরও যেসব শ্রোতা ড. জেবেলিকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন আমি তাদের কয়েকজনের নাম জানিয়ে দিচ্ছি।

  • কুষ্টিয়ার বাংলাদেশ ডি-এক্স ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল থেকে মোখলেছুর রহমান
  • সাইফুল ইসলাম থান্দার রাজশাহীর দুর্গাপুর থেকে
  • কিশোরগঞ্জ থেকে আতিকুল ইসলাম আতিক
  • আতাউর রহমান রঞ্জু, রংপুর থেকে

আশরাফুর রহমান: ভারত থেকেও বেশকিছু শ্রোতা শুভেচ্ছা জানিয়েছেন-

  • আসামের বরপেটা থেকে আবদুস সালাম সিদ্দিক
  • পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণা থেকে ভাস্কর পাল
  • মালদা থেকে সন্দ্বপ কাঞ্জিলাল
  • এবং কোচবিহার থেকে মনীষা রায়।

রেজোয়ান হোসেন: আইআরআইবির নয়া প্রধান ড. পেইমান জেবেলিকে অভিনন্দন জানানোয় আপনাদের সবাই ধন্যবাদ।

আকতার জাহান: আমাদের ফেসবুক পেইজের ইনবক্সে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদা থেকে দুটি বার্তা এসেছে। আর এগুলো পাঠিয়েছেন সন্দীপ কাঞ্জিলাল। তিনি পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ দিনাজপুরের বাসিন্দা। একটি বার্তায় তিনি লিখেছেন, “রেডিও তেহরানের ফেসবুক পেইজে আফগানিস্তান প্রসঙ্গে বাংলাদেশি শ্রোতা জিল্লুর রহমান সাহেবের একটি মতামত প্রকাশিত হয়েছে। সেই পোস্টের কমেন্ট বক্সে কিছু শ্রোতা অশালীন মন্তব্য ও অশ্লীল কিছু শব্দ ব্যবহার করেছেন। এটা আমার অত্যন্ত দৃষ্টিকটু লাগছে। কেউ কোনো ভুল করলে বা লিখলে, তাঁর সেই ভুল নিশ্চয়ই শুধরে দিতে হবে এবং গঠনমূলক সমালোচনা করতে হবে, কিন্তু অশ্লীল শব্দ কেন? আমার মনে হয় এই সমস্ত মন্তব্যকারীকে সতর্ক করে রেডিও তেহরানের পক্ষ থেকে মাঝে মাঝে কিছু পোস্ট দেওয়া উচিত, যাতে অন্তত তাদের ভাষা জ্ঞান ও শব্দ চয়ন সম্পর্কে সচেতন থাকে।”

আশরাফুর রহমান: শ্রোতাবন্ধু সন্দীপ কাঞ্জিলালকে ধন্যবাদ, গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য। আমরা শালীনতা বজায় রাখার অনুরোধ জানিয়ে ইতোমধ্যে মন্তব্যকারীদের উদ্দেশ্যে পোস্ট দিয়েছি। তারপরও কারো মন্তব্য আপত্তিকর মনে হলে আমাদের জানাবেন- আমরা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবো।  

বাংলাদেশের রাজবাড়ী জেলার খোশবাড়ীর রংধনু বেতার শ্রোতা সংঘের সভাপতি শাওন হোসাইন পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি।

প্রীতি, শুভেচ্ছা ও ভালোবাসা জানানোর পর তিনি লিখেছেন, রেডিও তেহরান বাংলা ভাষাভাষী শ্রোতাদের কাছে এখন এক আবেগের নাম। ব্যতিক্রমী ও বাস্তবসম্মত অনুষ্ঠান প্রচার ও নিরপেক্ষ সংবাদ পরিবেশনার জন্য রেডিও তেহরানের প্রতি শ্রোতাদের ভালোবাসা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। জ্ঞানপিপাসু শ্রোতাদের চাহিদা মেটাতে রেডিও তেহরানের এক ঝাঁক নিবেদিতপ্রাণ বেতারকর্মী সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে। যার ফলে আমরা শ্রোতারা রেডিও তেহরান থেকে বস্তুনিষ্ঠ ও জীবন ঘনিষ্ঠ অনুষ্ঠান শুনতে পারছি।

চিঠির শেষাংশে তিনি ইরানি চলচ্চিত্র ও সংস্কৃতি বিষয়ক একটি অনুষ্ঠান প্রচারের প্রস্তাব দিয়েছেন।

রেজোয়ান হোসেন: আপনার প্রস্তাবটি আমাদের বিবেচনায় থাকল। চিঠি আর মতামতের জন্য শাওন ভাই আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

শ্রোতাবন্ধুরা, এবার আমরা বাংলাদেশের এক নতুন শ্রোতার স্বকণ্ঠে আমাদের অনুষ্ঠান সম্পর্কে মতামত জানতে চাই। এ মুহূর্তে যিনি আমাদের সাথে আছেন প্রথমেই তার পরিচয় জানা যাক। 

আকতার জাহান:  ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার নওপাড়া থেকে নিজামুদ্দিন সেখ পাঠিয়েছেন এবারের মেইলটি। তিনি লিখেছেন, “রেডিও তেহরানের প্রতিটি অনুষ্ঠান অত্যন্ত মূল্যবানচিত্তাকর্ষক ও জ্ঞানবর্ধক হলেও শ্রোতাবান্ধব অনুষ্ঠান প্রিয়জন আমার কাছে অত্যন্ত প্রিয়। এই অনুষ্ঠান থেকে জানতে পারা যায় সব অনুষ্ঠানের গুণগত মান। শ্রোতাদের ভালো লাগা, না লাগা- সবই ফুটে ওঠে প্রিয়জনের মধ্য দিয়ে। পাশাপাশি অনুষ্ঠানের মান উন্নয়নে শ্রোতাদের গুরুত্বপূর্ণ মতামত প্রতিফলিত হয়ে থাকে এই প্রিয়জনের মাধ্যমে।”

অদূর ভবিষ্যতে রেডিও তেহরান শ্রোতাদের সঙ্গে সম্পর্ক আরও মজবুত করে বিশ্ব বেতার জগতে শ্রেষ্ঠ আসন লাভ করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করে চিঠিটি শেষ করেছেন।

আশরাফুর রহমান:  আপনাদের পরামর্শ, সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে রেডিও তেহরান তার কাঙ্ক্ষিত অবস্থানে পৌঁছাবে বলে আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। তো চিঠি লিখার জন্য নিজামউদ্দিন ভাই আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

রেজোয়ান হোসেন: বাংলাদেশের জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ উপজেলার পূর্ব নলছিয়া থেকে হারুন অর রশীদ পাঠিয়েছেন পরের মেইলটি। তিনি লিখেছেন,  “রেডিও তেহরান শুনি ফেসবুক লাইভে। মনের সমস্ত ক্লান্তি, শ্রান্তি ও ক্লিষ্টতা নিমিষেই দূর হয়ে যায়। নতুন ভালোলাগায় হৃদয়ে শান্তি ফিরে পাই। 'আদর্শ মানুষ গঁড়ার কৌশল', 'রংধনু আসর' আর সোমবারের  'প্রিয়জনে' দেশ-বিদেশের হাজারো পত্রলেখক বন্ধুদের ফেসবুক লাইভে সরব উপস্থিতি দেখে মনে শক্তি ও সাহস পাই। আনন্দে উচ্ছ্বসিত হয় মন।”

আকতার জাহান: এরপর হারুন ভাই লিখেছেন, “গত ১৫ সেপ্টেম্বর প্রচারিত 'স্বাস্থ্যকথা' অনুষ্ঠানে ঢাকার মহাখালি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল-এর স্বনামধন্য মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কবিরুল হাসান বিন রকিব এর চমৎকার ও সাবলীল কথামালায় কোভিড পরবর্তী জটিলতা নিয়ে বিশদ আলোচনাটি ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও সময়োপযোগী।”

আশরাফুর রহমান: একই অনুষ্ঠানের প্রশংসা করে পরের মেইলটি পাঠিয়েছেন কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীর শাপলা শর্টওয়েভ রেডিও লিসেনার্স ক্লাবের সভাপতি আবদুল কুদ্দুস মাস্টার।

তিনি লিখেছেন, “করোনা পরবর্তী সমস্যা ও জটিলতা দূর করতে করণীয় সম্পর্কে ঢাকার মহাখালী ডিএনসিসি ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. কবিরুল হাসান বিন রকীব-এর সাক্ষাৎকারটি ভীষণ ভালো লাগল। কোভিড আক্রান্ত রোগীর কোভিড নেগেটিভ হবার পর বিভিন্ন উপসর্গ এবং রোগীর ব্যতিক্রমী আচার আচরণ, স্মৃতিশক্তি লোপ ও তা থেকে ফিরিয়ে আনার টিপস, কাশির সমস্যা, খাবারের নিয়ম-কানুন মেনে চলা- এসব নিয়ে উক্ত সাক্ষাৎকারটি ছিল অত্যন্ত তথ্যমূলক ও সময়োপযোগী। বিশেষ করে কোভিড নেগেটিভ হবার পরও যে দীর্ঘদিন রোগীর এতসব উপসর্গ বা লক্ষণ দেখা দিতে পারে এমন কোনো ধারণাই আমার ছিল না।  এত সুন্দর ও অর্থবহ সাক্ষাৎকার উপহার দেয়ার জন্য ডা. কবিরুল হাসান এবং রেডিও তেহরানের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাচ্ছি অসংখ্য আন্তরিক ধন্যবাদ।”

রেজোয়ান হোসেন: ডা. কবিরুল হাসানের সাক্ষাৎকার সম্পর্কে তাৎক্ষণিক মতামত জানানোয় হারুন অর রশীদ এবং আবদুল কুদ্দুস মাস্টার আপনাদের দুজনকেই ধন্যবাদ।

আসরের এবারের চিঠিটি এসেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগণা জেলার মহেন্দ্রনগর থেকে। আর পাঠিয়েছেন ভাস্কর পাল। তিনি লিখেছেন, গত ১৬ সেপ্টেম্বর সান্ধ্য অধিবেশনে 'রংধনু আসর' অনুষ্ঠানটিতে একটি রূপকথার গল্প শুনে নিজের ছোটবেলায় ফিরে গিয়েছিলাম। অনুষ্ঠানটি শিশু-কিশোরদের জন্য হলেও সকল বয়সের শ্রোতাদের হৃদয় জয় করে নিতে সক্ষম। গাজী আব্দুর রশিদ ও আকতার জাহানের কণ্ঠে এই গল্পপাঠ অনুষ্ঠানটিকে বেশ জমজমাট করে তোলে। আশরাফুর রহমানের প্রযোজনায় অনুষ্ঠানটি আমাদের চেতনাকে সমৃদ্ধ করে।

আকতার জাহান: একই অনুষ্ঠান সম্পর্কে ভারতের আসামের বরপেটা থেকে আবদুস সালাম সিদ্দিক লিখেছেন, “গত ১৬ সেপ্টেম্বর প্রচারিত রংধনু অনুষ্ঠানে ইরানের ইস্কান্দারনামা গ্রন্থ থেকে বনের রাজা সিংহ, বানর ও শিয়ালের একটি মনোরম ও চমৎকার মনোরঞ্জনের গল্প প্রচার করা হয়। এর মাধ্যমে মানুষ যে মেধা ও জ্ঞান-গরিমায় সবার উর্ধ্বে এবং পশুদের ওপর প্রভুত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে তা সুন্দরভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। সেই সাথে ছোট্টবন্ধু আফিফা ইয়াসমিন মারিয়ামের সাক্ষাৎকার ছিল বেশ আকর্ষণীয়।”

আশরাফুর রহমান: ১৬ সেপ্টেম্বরের রংধনু আসরটি আপনাদের ভালো লেগেছে জেনে আমাদেরও ভালো লাগছে। চিঠি লিখে বিষয়টি জানানোয় আপনাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

তো বন্ধুরা, দেখতে দেখতে আমাদের আজকের আসরের সময় ফুরিয়ে এসেছে। বিদায় নেওয়ার আগে আপনাদের জন্য রয়েছে একটি গান। জীবনমুখী এ গানটির কথা, সুর ও শিল্পী আমিরুল মোমেনীন মানিক।  

রেজোয়ান হোসেন: আপনার গানটি শুনতে থাকুন আর আমরা বিদায় নিই প্রিয়জনের আজকের আসর থেকে। #

পার্সটুডে/আশরাফুর রহমান/১৯

বিশ্বসংবাদসহ গুরুত্বপূর্ণ সব লেখা পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে অ্যাকটিভ থাকুন। 

ট্যাগ